দেবর্ষি মজুমদার, লেখক, বীরভূম:

ভোটের মরশুমে বোলপুর শ্রীনিকেতন ব্লকের কসবা পঞ্চায়েতের দুটি গ্রাম উত্তর সেহালাই ও দক্ষিণ সেহালাই গ্রাম বাঁধে জোট। কোপাই নদীর উপর সেতু না পেলে, তারা দেবে না ভোট। এই দাবিতে  তারা পাশে পেয়েছে আরও বেশ কয়েকটি গ্রাম।  “নেই পারাপার, নেই ভোট দেওয়ার দরকার”, “ সেতু নেই, ভোট নেই” এরকম বিভিন্ন শ্লোগানের প্ল্যাকার্ড হাতে নিয়ে গ্রাম বাসীরা বিক্ষোভ দেখিয়েছে সংবাদ মাধ্যমের সামনে। যদিও, এখনও বিধানসভা ভোটের নির্ঘন্ট প্রকাশ করেনি নির্বাচন কমিশন। তবুও এলাকাবাসীর দাবি, দিনক্ষণ ঘোষণা না হলেও, ঘন্টা বেজে গেছে, প্রচার চালাচ্ছে সব রাজনৈতিক দল। আমরা তাই আগেই আমাদের মতামত জানিয়ে দিলাম। সেতু নেই তো, ভোট নেই। 

জানা গেছে, কোপাই নদীর উপর এই সেতুর দাবি দীর্ঘ দিনের। উত্তর সেহালাই ও দক্ষিণ সেহালাই গ্রামে বারোশো লোকের বাস।

শান্তিনিকেতন বা বোলপুর আসতে গেলে তাদের এই কোপাই নদীর উপর বাঁশের সেতু দিয়ে যাতায়াত করতে হয়। গ্রামের মানুষকে বাঁশের সেতু দিয়ে হাসপাতাল, বাজার ঘাট ও এলাকার শিক্ষার্থীদের যাতায়াত করতে হয়। কিন্তু ভরা বর্ষায় এই বাঁশের সেতুকে ভাসিয়ে নিয়ে যায় জলের তোড় (স্রোত)। তখন তিন চার কিমি দূরে ঘুরে গোয়ালপাড়া সেতু হয়ে শান্তিনিকেতন যেতে হয়।

গ্রামের বাসিন্দা হেমেন্দ্রনাথ পাল, স্নেহাশীষ গোস্বামী ও কল্পনা দাসেরা জানান, এই সেতুর দাবি আমাদের দীর্ঘ দিনের। পঞ্চায়েতকে জানিয়ে কোন লাভ হয়নি। ভোট আসে ভোট যায়। সেতু হয় না। তাই আমরা ঠিক করেছি ভোট যবেই হোক, আমরা সেতু পাইনি, ভোট দেব না। কষ্ট করে বাঁশের সেতু পেরিয়ে আমাদের যাতায়াত করতে হয়। বর্ষায় জলের তোড়ে সেতু ভেসে যায়। তখন আমাদের গোয়াল পাড়া হয়ে তিন চার কিমি ঘুরে শান্তিনিকেতন যেতে হয়। তবে গ্রামে পাকা ঢালাইয়ের রাস্তা হয়েছে। এখন দাবি সেতুর। জেলা পরিষদের মেন্টর অভিজিৎ সিনহা বলেন, ন্যাহ্য দাবি। পঞ্চায়েতে অত অর্থ নেই। তবে জেলা স্তরে দাবি এলে নিশ্চয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

(www.theoffnews.com - no bridge no vote Sehalai)

Share To:

THE OFFNEWS

Post A Comment:

0 comments so far,add yours